Friday, 15 April 2016

স্বর্ণ মুসুর

মা'র রান্নার স্বাদই আলাদা। ছোটবেলা থেকে মা'র হাতের নানারকমের নিরামিষ রান্নাই আমার সবচেয়ে প্রিয়। এখনও যখন মা'র কাছে যাই আমার আবদারে আগেই হাজির হয়ে যায় বড়ি পোস্ত, কচুর শাক, মোচার ঘন্ট, লাউ চিংড়ি, মুসুর ডালের বড়ার তরকারি আরো অনেক কিছু। মুসুর ডালের বড়ার প্রতি দুর্বলতা আমার বরাবরই একটু বেশি। মা-কে দেখেছি আলু, বেগুন বা ঝিঙে দিয়ে ঝোল বা সরষে দিয়ে মুসুর ডালের বড়ার ঝাল করতে। ভাবছিলাম এই সাবেকি রান্নার সাথে নতুন কি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করব! ভাবতে ভাবতেই এই "স্বর্ণ মুসুর" এর আইডিয়া মাথায় এল।

খুব সহজ, চটপট হয়ে যাওয়া এই স্বর্ণ মুসুর সাবেকি এবং আধুনিক রান্নার দারুণ এক মেলবন্ধন। বাড়ির সব বয়সের সদস্যদের মন, স্বাদ এবং পেট ভরাতে একশ শতাংশ সফল হবে ইচ্ছে হেঁশেলের এই নতুন পদ স্বর্ণ মুসুর৷ তাই আজ ইচ্ছেহেঁশেলের ভালোবাসার আঁচে, সাধস্বপ্নের কড়াইতে আশার খুন্তি দিয়ে তৈরী হচ্ছে সাবেধুনিক (সাবেকি+আধুনিক) পদ স্বর্ণ মুসুর।

টুকটাক যা লাগবেঃ

i) মুসুর ডাল (৩৫০ গ্রম)
ii) পিঁয়াজ কুচি (১ টা)
iii) লঙ্কা কুচি (৪-৫ টা)
iv) ক্যাপসিকাম কুচি (১ টা)
v) গাজর কুচি (-১ টা)
vi) রসুন কুচি (৮-৯ কোয়া)
vii) আদা বাটা (১ চা-চামচ)
viii) পিঁয়াজ ডুমো করে কাটা (৪ টা)
ix) চেরা কাঁচা লঙ্কা (৪-৫ টা)
x) সাদা তেল
xi) নুন
xii) চিনি
xiii) টমেটো টমটম

রান্না শুরুঃ 

মুসুর ডাল ভালো করে ধুয়ে পরিষ্কার জলে ভিজিয়ে রাখুন কমপক্ষে ৪-৫ ঘন্টা।
ভেজানো মুসুর ডাল অল্প জল, নুন, একটু চিনি এবং কাঁচালঙ্কা দিয়ে মিক্সি বা শিলনোড়ায় বেটে নিন। বাটা ডাল ভালো করে ফেটিয়ে রেখে দিন। ডাল বাটার মধ্যে পিঁয়াজ কুচি এবং লঙ্কা কুচি মেশান।
কড়ায় সাদা টেল গরম হলে ছোট ছোট করে বড়া ভেজে তুলে রাখুন। এবার ঐ তেলেই প্রথমে রসুন কুচি তারপর ক্যাপসিকাম কুচি, ডুমো করে কাটা পিঁয়াজ, গাজর কুচি, চেরা কাঁচা লঙ্কা, আদা বাটা দিয়ে ভাজুন। একটু ভাজা হলে নুন, চিনি এবং বেশ খানিকটা (প্রায় এক কাপ) টমেটো টমটম মেশান। সব্জিগুলোর সাথে টমেটো টমটম মিশে গেলে ভাজা বড়া গুলো যোগ করে ভালো করে নাড়াচাড়া করে খানিকটা জল মিশিয়ে চাপা দিয়ে দিন। ৫ মিনিট হাই ফ্লেমে এবং আরো ৫ মিনিট লো ফ্লেমে রেখে মাখো মাখো হয়ে এলেই সাবেধুনিক পদ স্বর্ণ মুসুর ভোজনরসিকদের রসনাতৃপ্তির জন্য একেবারে তৈরী।

বিঃ দ্রঃ

i) মুসুর ডালটা আগেরদিন রাত্রে ভিজিয়ে রাখতে পারেন। সারারাত ভিজলে ডাল বেশি নরম হয়।
ii) মুসুর ডাল বাটার মধ্যে যদি চান পিঁয়াজ ও লঙ্কা কুচির সাথে ডিম মেশাতে পারেন, ভালো লাগবে। তবে পিঁয়াজ কুচি বেশি দেবেন না। ডালের স্বাদ কমে যাবে।
iii) ডাল যত ফেটাবেন, বড়া তত ভালো হবে।
iv) টমেটো টমটমের বদলে অন্য যেকোন টমেটো সস ব্যবহার করতে পারেন।
v) এই রান্নার স্বাদের অনেকটাই নির্ভর করে টমেটো টমটমের ওপর। তাই কমপক্ষে এক কাপ টমেটো টমটম মেশাবেন। কিন্তু যদি টমেটো টমটমের স্বাদ ভালো না লাগে তাহলে কম দিতে পারেন। যাদের ভালো লাগে তারা এক কাপ দেওয়ার পর চেখে , যদি প্রয়োজন মনে হয় ,আরো খানিকটা দিতে পারেন।
vi) রান্নায় জলের ব্যবহার ভীষণ ইমপর্ট্যান্ট। জল না দিলে বড়ার মধ্যে গ্রেভির কোন স্বাদ ঢুকবে না এবং বড়া নরম ও হবে না।
vii) এই রান্নায় নিজের ইচ্ছেমত আরও সব্জি, যেমন বিনস, বাঁধাকপি, মটরশুঁটি, ধনেপাতা দিতে পারেন। চাইলে কোন সবজি না-ও দিতে পারেন। তবে পিঁয়াজ, ক্যাপসিকাম, রসুন, আদা এবং কাঁচালঙ্কা ছাড়া "স্বর্ণ মুসুর" জমবে না।
viii) নুন, মিষ্টি, ঝাল এবং টমেটো টমটমের পরিমাণ নিজের এবং যারা খাবে তাদের পছন্দ অনুযায়ী বাড়িয়ে বা কমিয়ে নিতে পারেন। 
গরম কালের একঘেয়ে রান্নার মধ্যে এই সাবেধুনিক পদ ছোট বড় মেজ সব ধরণের ভোজনরসিক বা ভোজনবেরসিকের পেট এবং মন ভরাবে আশা রাখি।

No comments:

Post a Comment

দিদার দুই রেসিপি

আমার মা সব কথাতেই বলে রান্নাটা নাকি জিনের ব্যাপার। জিন কি ভূত কি জিনি তা বলতে পারব না, তবে একথা সত্যি বটে আমার দিদা এবং মা-র হাতের রান্নার ...